ফেসবুকে অনিয়ন্ত্রিত ট্যাগাচরণ ও আমার কিছু বক্তব্য

আমার জীবনের অনেক সংগ্রাম, ত্যাগ, ও পরিশ্রমের ফলশ্রুতিতে আমি আমার জীবনের অস্তিত্বকে  খুঁজে পেয়েছি।  আজ আমার যতটুকু সফলতা, তার আলোকে অন্যদের জন্য কিছু লিখলাম

১। ভুল মানুষের সাথে সময় নষ্ট করবেন না :

আমাদের জীবনের  সময়টা  অনেক  ছোট  এবং সেই সময়টাকে সঠিকভাবে কাজে  লাগাতে পারলেই, জীবনে সফল হতে পারবেন। অনেকেই  আসবে  আপনার  বন্ধু  হতে। তবে  প্রথমেই  বুঝে  নিতে  হবে  আপনার  খারাপ  সময়  পাশে  সে থাকবে  কিনা ? যারা  আপনার  ভালো  কিছু  দেখে  উপহাস  করে,  তারা সঠিক বন্ধু হতে পারেনা। তার কাছ থেকে  নিজেকে  একটু  বুদ্ধিমত্তার সাথে  দূরে  রাখুন,  কারণ  একজন  ভালো  বন্ধু  যেমন আপনাকে  বিপদ  থেকে রক্ষা করবে,  তেমনি  একজন  খারাপ  বন্ধু হতে পারে   বিপদের কারণ।  তাই   ভালো  বন্ধুর  সাথেই  সময়  কাটান।

a77

২। ভুল  চাহিদা  থেকে  দূরে রাখতে হবে :

জীবনের  সবচেয়ে কষ্টের  ব্যাপার   হচ্ছে  যাকে আপনি  ভালবাসেন,   তার  থেকে  কষ্ট  পাওয়া বা একটা চাহিদা আপনার প্রবল ইচ্ছা কিন্তু না পাওয়া।  ভুলে যাওয়া যাবে না আমি, আপনারা  আপনার  জীবনে অনেক  মূল্যবান, তাই নিজের  অস্তিত্বকে  প্রমান করে  হতে  পারেন  কারো  জন্য আপনিও  অনেক  মূল্যবান। কখনো নিজেকে খাটো করে দেখা যাবে  না। এখনই  সময়  আপনার  নিজের  অস্তিতক  প্রমান  করা  নিজকে গড়ে  তুলুন  অধিক  পরিস্শ্রমের  মধ্য দিয়া।

৩। দূরে  রাখতে হবে আপনার  পূর্বের  ভুল  গুলো  থেকে:

আপনি  যদি আপনার  পূর্বের  ভুল  গুলি  নিয়া  এগিয়ে  যান  তাহলে  ভবিষ্যতে   জীবনে  অনেক  ধাক্কা  খাবেন। মনে  রাখবেন  আপানর  ভুল  গুলি  হচ্ছে  আপনার  ভবিষ্যতের  সার্থকতার    টিপস। ভবিষ্যতের  জন্য  কঠোর  পরিশ্রমের  মাধ্যমে   নিজেকে  এগিয়ে  নেয়ার  প্লান  করুন  এবং  নিজে  নিজকে  বিচার  করার  ক্ষমতা  গড়ে  তুলুন।

৪। অন্যের  সুখ  নিয়ে নিজকে  মিলিয়ে দেখা যাবে  না :

হতে  পারে  অনেকেই   জীবনে অনেক  বড়  কিছু  পেয়ে  খুব  সুখে  আছে। তবে  অন্যের  সুখের  সাথে  নিজকে  মিলিয়া  দেখবেন  না  যে আপনিও  যদি  এমন  হতে  পারতেন , মনে  রাখতে হবে  আপনার  মধ্যে  সুপ্ত   কিছু  আছে,  যা  আপনাকে  নিয়ে  যাবে  তার  থেকেও  বড়  কিছু  সার্থকতার দিকে।

 ৫। ”আপনি  প্রস্তুত  না” এ ধরনের চিন্তা বন্ধ করতে হবে :

জীবনে  কেও  চিন্তা  করতে  পারবে  না  সে 100  ভাগ  প্রস্তুত  নিজকে নিয়ে । আপনাকে এখন  থেকেই  প্রস্তুত  হতে  হবে  এবং  নিজকে  প্রস্তুত করতে  হবে  চ্যালেঞ্জ  নিয়া , অতিরিক্ত  চিন্তা  করা  যাবে  না  আপনার  অনেক  বয়স  হয়ে   গিয়াছে , স্টাডি  গেপ  গিয়েছে , অসচ্ছল।  চ্যালেঞ্জ  নিতে হবে,

৬।নিজের সমস্যায় অন্যকে  দোষারোপ  করা বন্ধ করুনঃ

নিজের  স্বপ্নকে বাস্তবায়ন  করতে  গিয়ে  জীবনে  যখন  কোনো সমস্যা  আসে, তখন  অন্যের  উপর  দোষ চাপানো  থেকে  বিরত  রেখে  নিজের  অস্তিতকে  তুলে  ধরুন।  সততা  দিয়ে,  মিথ্যা  দিয়ে  নয়  তাহলেই  আপনি,  আমরা একদিন  খুব  বড়  হতে  পারবো।

৭। অন্যকে নিয়ে  হিংসা  করা বন্ধ করুন  :

a1

হিংসা  মানুষকে শেষ  করে  দেয় , আপনার  নিজের  যা  কিছু  আছে  তানিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হবে। হতে   পারে  আপনার ছোটো  চাকুরী, ছোটো  ব্যবসা, পরীক্ষায়  ভালো  ফলাফল  না  করা,  কিন্তু মনে রাখতে  হবে উপরে  যিনি আছেন তিনি মানুষকে তার  পরিশ্রমের  ফলাফল  একদিন  দিবেনই। তাই  ধৈর্য  সহকারে  নিজের  জীবনের  পরিশ্রমকে  কাজে  লাগান,  সফলতা  আসবেই। এটা  আমার  ছোটো  জীবনের  সফলতা  থাকে  বলা।

৮। অতিরিক্ত  দুশ্চিন্তা  থেকে  নিজেকে  বিরত  রাখতে হবে :

অতিরিক্ত  দুশ্চিন্তা  আপনার  উপর  ভর করতে  করতে  একদিন  আপনার  নিজের  অস্তিত্বকে  ভুলিয়ে দিবে যে আপনি  কে? তাই  নিজেকে  অন্যের  সামনে  তুলে  ধরতে হবে  যে  আপনি  সবসময়  ভালো  আছেন  এবং  অন্যকে  ভালো  রাখার  চেষ্টা  করছেন, কারণ আপনার দুশ্চিন্তা থেকে আপনার পাশের মানুষটিরও ক্ষতি হতে পারে।

৯। নিজের উপর বিশ্বাস করে নিজেকে তৈরী করতে হবে:

এখন থেকেই আপনাকে নিয়ে প্লান করে ফেলুন আপনার  ডেস্টিনেশন কোথায় এবং আপনি কোথায় যেতে চান।  তারপর এক এক করে তা বাস্তবায়ন এর দিকে এগিয়ে যান প্রবল ইচ্ছা শক্তি নিয়ে,  কারণ সফলতা আপনার সাথেই আছে। নিজেই নিজেকে বিচার করতে হবে  আমি এখন কোথায় আছি এবং কোথায় আমাকে যাতে হবে।   ইনশাল্লাহ একদিন  আপনাদের সফলতা আসবেই।

আপনাদের আমার প্রথম লিখা যদি ভালো লাগে থাকে তাহলে আমি চেষ্টা করব আমার কর্পোরেট জীবনের প্রাকটিক্যাল দৃষ্টান্ত নিয়ে লিখার। এছাড়া আপনারাও আপনাদের  সফলতা নিয়ে আমাদের সাথে শেয়ার করতে পারেন।

টিউন করেছেন Md. Akram Hossain

No Comments Yet

Leave a Reply

Your email address will not be published.